ads

আনিসুল হককে নিয়ে কিছু কথা

আনিসুল হক

শাখাওয়াত হোসেন মুকুল

 

 

সদ্য প্রয়াত ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক। নব্বইয়ের দশকে বিটিভির সফল উপস্থাপক হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছেন তিনি। ছিলেন বিনোদন প্রেমী মানুষের অন্তরে। তখন আনিসুল হকের মনমুগ্ধকর উপস্থাপনায় আকৃষ্ট হতেন অনেকে। সেই সাংস্কৃতিমনা মানুষটি ধীরে ধীরে হয়ে উঠেন সফল উদ্যেক্তা। ছিলেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই এর সভাপতি।

 

 

সর্বশেষ বিএনপির ভোট বর্জনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন-এর মেয়র। পরিচ্ছন্ন ঢাকা গড়ার অঙ্গিকার নিয়ে অল্প দিনে ঢাকা উত্তর বাসীর মন জয় করেন আনিসুল হক।

 

 

আমার দেখা মতে, প্রভাত বেলায় কোনো দেহরক্ষী ছাড়া এলাকার বিভিন্ন চিত্র দেখার জন্য একাই বেরিয়ে পড়তেন রাজপথে। কোথাও কোনো অনিয়ম মনে হলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নিতেন। ঢাকা উত্তরকে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ রাজধানী হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন আনিসুল হক।

 

 

সবসময় গরীব দু:খি মানুষের পাশে দাঁড়াতেন তিনি। একজন সৎ বিচক্ষন রাজনীতিবিদ ও জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে নিজেকে দাঁড় করিয়েছেন সাফল্যের স্বর্ণ শিখরে। নগরীর সাধারণ জনতার অন্তরজুড়ে ভালবাসার পাত্র ছিলেন তিনি।

 

 

অন্যদিকে, কিছু প্রভাবশালীদের চক্ষুশলি ছিলেন আনিসুল হক। অবশ্য তাতে মোটেও বিচলিত ছিলেন না তিন। সকল দুর্নীতি, অন্যায় ও অনিয়মের বিরুদ্ধে রাজপথের লড়াকু সৈনিকের মতো ছুটে চলেছেন এই প্রগতিশীল মানুষটি। তার স্বপ্ন ছিল পরিচ্ছন্ন নগরী হবে ঢাকা। তার কথায় যেমন ছিল ক্ষুরধার, চাহনিতে ছিল শাসকের চিহৃ। তেমনি অসহায় নগরবাসীর জন্য ছিল মায় মমতা। এই স্বল্প সময়ে নিজেকে বিকিয়ে দেননি ক্ষমতার কাছে। পরাজিত হনননি শাসকদলের কোন রক্তচক্ষুর কাছে। নিজের মতো করে চলেছেন এই বীর মানুষটি।

 

 

রাজধানীর তেজগাঁওয়ের ট্রাক স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করে পরিচয় দিয়েছেন এক মহানুভবতার। ফুটপাত হকার মুক্ত করে পথচারিদের জন্য স্থাপন করেছেন উজ্জল দৃষ্টান্ত। এইতো সেদিনের কথা মহাখালীতে রেলগেটের পাশে সরকার দল আওয়ামী লীগের অফিস সরকারী জায়গা থেকে উচ্ছেদ করেছেন তিনি।

 

 

এতে ক্ষমতাশীলরা খুশি না হলেও মোটেও অখুশি হননি স্থানীয় বাসিন্দারা। প্রকাশ্যে না পারলেও মনে মনে বাহ্বা দিয়েছেন আশপাশের বাসিন্দারাসহ সাধারণ জনতা।

 

 

অন্যদিকে, মহাখালী থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত সড়কের দু’পাশে সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে কিঞ্ছিত পরিমান সরকারী জায়গাও দখলে রাখতে দেননি দখলকারীদের। তার কথায় চিল মাস্তানী চলবে না সরকারী জায়গা দখলকারীদের। সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছেন তিনি। ছুটে চলেছিলেন দুর্বার গতিতে। আজ চলে গেছেন না ফেরার দেশে।

 

 

বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০১৭ লন্ডনের একটি হাসপাতালে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে দশটার দিকে মৃত্যুর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলে গেছেন না ফেরার দেশে। চলে গেছেন আপন গতিতে। আল্লাহ প্রিয় মেয়র আনিসুল হককে জান্নাতুল ফেরদাউস নসীব করুন।

 

 

[লেখক: বার্তা কক্ষ সম্পাদক, বৈশাখী টেলিভিশন।]

Facebook Comments

এ সংক্রান্ত আরো খবর




সম্পাদক: আরিফা রহমান

২৮/এফ ট্রয়োনবী সার্কুলার রোড, ৫ম তলা, মতিঝিল, ঢাকা।
সর্বক্ষণিক যোগাযোগ: ০১৭১১-০২৪২৩৩
ই-মেইল ॥ sangbad24.net@gmail.com
© 2016 allrights reserved to Sangbad24.Net | Desing & Development BY Popular-IT.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com