ads

আমি কোনও উৎপল দাসের সন্ধান দাবি করছি না

সালমান তারিক সাকিল

সালমান তারিক সাকিল

 

 

জন্মের পর থেকে কোনও কালেই নিজের জন্মভূমি নিয়ে শতভাগ সন্তুষ্ট হতে পারিনি। এই না পারার ব্যর্থতা কার—সেদিকেও যাচ্ছি না। বহু বছর আগে, মানে স্বাধীনতার আগে ও পর থেকে গুম-খুন-নিখোঁজ এসব তো নিত্যই আমাদের সঙ্গী। ফলে ব্যক্তির নিরাপত্তার প্রশ্নটি সামনে রেখে বহুবছর আগে প্রয়াত সাংবাদিক-বুদ্ধিজীবী-রাজনীতিক নির্মল সেন বলেছিলেন, ‘স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি চাই।’ নির্মল সেন বুদ্ধিজীবী বলে এই স্বাভাবিকতার মরণ দেখেছিলেন, যা আমরা দেখেছি আমাদের বয়স বাড়ার পর। জীবনের হিসেবে ত্রিশ বছর খুব বেশি না।

 

 
তারুণ্য, কৈশোর আর যৌবনের আসল খেলাটা এই বয়সেই হওয়ার কথা। কিন্তু রাজনৈতিক বাস্তবতা আমাদের সামনে এনে দিয়েছে, ভেজাল জীবনের চেয়ে একা জীবন ভালো। এই রাষ্ট্র ক্রমাগত তার নাগরিকদের এই সত্যের মুখোমুখি করেছে। আর একইসঙ্গে তৈরি করেছে এই বাস্তবতা উপলব্ধি করে গলাধকরণ করার কিছু লোক। ফলে, আমাদের সময়ে ত্রিশের কোনও ম্যাজিক নেই, আছে অবলুপ্তমনে সবকিছু দেখে-দেখে ইতরের মতো বেঁচে থাকা। আর একেই সামাজিক দায়বদ্ধতায় নাম দেওয়া হয়েছে ম্যাচিউরিটি।

 

 
সাংবাদিক Utpal Das; আমার সহযোদ্ধা এবং বন্ধুর মতো হলেও তার সন্ধান দাবি করছি না। কারণ, একজন উৎপল দাস ঠিক আমার অভিব্যক্তি। আমি লিখি, উনিও লিখেন। আমি চাকরী করি, উনিও করতেন। ব্যবহার বা আদর্শ কিংবা চিন্তায় নানান ফাঁরাক থাকলেও মুক্তমনের যে বাতায়ন উৎপল দাসের বুকের ভেতরে ছিলো, সেটিই আমার সবচেয়ে বেশি ভালোলাগার এবং ক্ষেত্র বিশেষে প্রেমেরও। আমি ঠিক জানি না, উৎপল দাসের সমস্যা কোথায় ছিলো? খুব গোপনে রাষ্ট্র বা প্রতিষ্ঠান বা কোনও ব্যক্তি-উপদল বা কেউ-ই তার শত্রু হয়ে দাঁড়িয়েছিলো। কিন্তু এই শত্রুতার লক্ষ্মণ বড় খারাপ।

 

 
অবাক হই না, এ কারণে আমাদের দেশে এই শত্রুতার ইতিহাস বড় দীর্ঘ। ফলে, আমি এই রাষ্ট্রের কাছে উৎপল দাসের সন্ধান দাবি করতে চাই না। এমনকী কোনও প্রতিবাদও। শুধুমাত্র একটা স্বপ্ন ও আর একটা ক্ষুদ্র আশা কেবল মনের মধ্যে কয়েকদিন ধরে পুষে রেখেছি। উৎপল দাস কোথাও থেকে লাইভে এসে বলবেন, ‘বন্ধুরা অনেকদিন গোপনে ছিলাম, চারটি গান আর দুটি কবিতা লিখেছি। আপনাদের শোনাব।’

 

 
কেন জানি, গত কয়েকদিন ধরে টানা দুঃস্বপ্ন দেখছি। কোনও দিন কেউ মারছে, কোনও দিন রাতে আবার কোনও প্রাণী খুবলে খাচ্ছে বাম হাত।আবার কোনও দিন দেখেছি পরিচিত চেহারার লোকেরাই কুপিয়েছে শরীরে। এসব দুঃস্বপ্নের মাঝে হঠাৎ আজ সোমবার খুব ভোরে ঘুম ভেঙে যায়।

 

 

রোদবারান্দায় দাঁড়িয়ে ভাবি, সকাল খুব সুন্দর ও পবিত্র।

 

 
২৩ অক্টোবর, ২০১৭

 

 

[লেখক: সাংবাদিক, বাংলা ট্রিবিউন।]

[লেখকের ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে নেয়া।]

Facebook Comments

এ সংক্রান্ত আরো খবর




সম্পাদক: আরিফা রহমান

২৮/এফ ট্রয়োনবী সার্কুলার রোড, ৫ম তলা, মতিঝিল, ঢাকা।
সর্বক্ষণিক যোগাযোগ: ০১৭১১-০২৪২৩৩
ই-মেইল ॥ sangbad24.net@gmail.com
© 2016 allrights reserved to Sangbad24.Net | Desing & Development BY Popular-IT.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com