ads

মুসলমানদের ফেভারে আর কোনও টিভি নেই

তসলিমা

তসলিমা নাসরিন

 

 
যত বেশি জিমে যাচ্ছি, যত ব্যায়াম করছি, তত ওজন বাড়ছে। আর কাহাতক সহ্য করা যায় এই যন্ত্রণা! পারসোনাল ট্রেইনার নিয়ে নিলাম একদিন। যে ট্রেইনারকে দেখে মনে হয়েছে আর সব ট্রেইনার থেকে ভালো, সেই ট্রেইনার। তিন মাসের টাকা একবারে জমা দিয়ে । টাকা জমা হয়ে গেলে ট্রেইনার আমাকে বললো, এই আমার ফোন নম্বর, এটা সেভ করে রাখো। জিজ্ঞেস করলাম, কী নামে সেভ করবো? ট্রেইনার বললো, বদিউজ্জামান খান। পরদিন বদিউজ্জামান আমাকে তার খাতায় আমার নাম লিখতে বললো। আমি লিখলাম মানসী রায়। জিমের রেজিস্টারেও এই নাম আমার। যেখানে নিয়মিত যেতে হয়, সেখানের কোথাও নিজের নাম দিইনা। বদিউজ্জামান কিছুক্ষণ পর বললো, ‘আমার পড়া হয়নি। কিন্তু আমার দুজন ক্লায়েন্ট তোমার বই পড়েছে। সেদিন বললো তোমার কথা।’

 

 
তার মানে নাম পরিচয় লুকিয়ে কাজ হয়নি। জানে আমি কে।

 

 
ব্যায়াম করছি। হঠাত বললো, ‘আচ্ছা তুমি কি এই সরকারের সমালোচনা করে কিছু লেখো না?’

 

 
আমি কিছুক্ষণ চুপ থেকে বললাম ‘রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে সরকারের যে মত, তার সঙ্গে আমি দ্বিমত পোষণ করি। আমি চাই নিরাশ্রয় মানুষেরা মায়ানমারে ফিরে না যাওয়া পর্যন্ত আশ্রয় পাক। ‘

 

 
বদিউজ্জামান খুশি হলো, পরদিন আমাকে বললো, ‘ওয়েসি ভাইরা খুব সুবিধের না। তিন তালাক ব্যাপারটাও ঠিক না। ব্যস স্ত্রীকে চট জলদি তালাক দিয়ে দিলাম, বাচ্চা কাচ্চা নিয়ে সে এখন যাবে কোথায়?’

 

 
সম্ভবত সে নেট ঘেঁটে জেনে এসেছে ইদানিং কী নিয়ে বিতর্ক চলছে। আমার পক্ষে কিছুটা বলে তারপর জানালো সে মুজাফফরনগরের ছেলে। দিল্লি চলে এসেছে দশ বছর আগে। শহরে ছোটো মোটো একটা বাড়ি করেছে। জীবন বড়িয়া চলছে। ছেলে ভালো ইস্কুলে পড়ে।

 

 
‘তবে কী জানো, এই জিমে ঈদের ছুটি নেই। আমি ঈদে আসি না, আমার টাকা কাটে এরা।’

 

 
‘পুজোয় ছুটি থাকে? ‘

 

 
‘হ্যাঁ পুজোয় ছুটি থাকে। ‘

 

 
‘ আচ্ছা, মুজাফফরনগরের দাঙ্গায় কজন মুসলমান মরেছিল?’

 

 
‘বহুত’।

 

 
‘হিন্দুও মরেছিল?’

 

 
বললো, ‘খুব মরেছিল। ইয়ং ছেলেপুলেরা বেশী মরেছিল। ‘

 

 
আমাকে ব্যায়াম দেখিয়ে দেয়, আমি করতে থাকি। কিন্তু তার মূল উদ্দেশ্য আমার সঙ্গে কথা বলা। বললো, ‘এনডিটিভি তো বিজেপি কিনে নিয়েছে। ‘

 

 
‘কবে?’

 

 
‘কেনা হয়ে গেছে। এখন এনডিটিভির আশি পারসেন্ট বিজেপির। আমাদের কথা বলার আর কোনও টিভি রইলো না। ‘

 

 
আমি বললাম, ‘তা কেন হবে, অন্য টিভি তো আছে। বলবে। ‘

 

 
‘না, মুসলমানদের ফেভারে আর কোনও টিভি নেই। ‘

 

 
বদিউজ্জামান আমার জন্য প্রশ্ন নিয়ে তৈরি থাকে। পরদিন বললো, ‘আচ্ছা এ দেশের হিন্দুরা বললো, কোনো মুসলমানই নাকি আগে ছিল না, সব নাকি হিন্দু থেকে এসেছে?

 

 

 

তোমার কী মত? ‘

 

 
আমি বললাম, ‘তুমি ইতিহাস জানো না? ভারতের ইতিহাস বা ইসলামের ইতিহাস ‘?

 

 
বদি চুপ।

 

 
আমি বললাম, ‘কিছু মুসলমান আরব দেশ থেকে এসেছে, কিছু মধ্য এশিয়া থেকে। আর বাকিরা তো লোকাল লোক, হিন্দু ছিল, মুসলমান হয়েছে। প্রায় সবাই ধর্মান্তরিত মুসলমান। ‘

 

 
বদিউজ্জামান বাঁকা হাসলো। বললো,’ ধর্মান্তিরিত মুসলমানের সংখ্যা এত বেশি হয় বুঝি? পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি মুসলমান এই ভারতে।’

 

 
আমি শুধরে দিয়ে বললাম,’ সবচেয়ে বেশি মুসলমান ইন্দোনেশিয়ায়। দ্বিতীয় ভারতে। ‘

 

 
আবারও বাঁকা হাসি, আমার মিত্থ্যে ধরে ফেলার হাসি। বললো, ‘এত বেশী মুসলমান ধর্মান্তকরণের মাধ্যমে হতে পারে না।’

 

 
আমি বললাম, ‘ইসলাম আরব দেশ থেকে এসেছে, জানো তো? ইসলামের জন্ম ভারতবর্ষে হয়নি। তবে ধর্মান্তরিত তো শুধু মুসলমানই নয়, অন্য ধর্মের মানুষও একসময় কোনও একটা ধর্ম বিশ্বাস ত্যাগ করে নতুন একটা ধর্মে বিশ্বাস শুরু করেছে। বংশানুক্রমে বিশ্বাস বয়ে চলেছে ‘

 

 
আমার কথায় কান দেওয়া সে প্রয়োজন মনে করলো না। সে ভালো জানে মুসলমানেরা কোত্থেকে এসেছে। সব মুসলমানই হযরত আদমের বংশধর। ধর্মান্তকরণের কোনও ব্যাপার কোথাও ঘটেনি।

 

 
আমি জানি না এই ট্রেইনার আমাকে প্রশ্ন করতে করতে কোথায় নেবে।

 

 

[লেখকের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত]
[লেখক: লেখিকা।]

Facebook Comments

এ সংক্রান্ত আরো খবর




সম্পাদক: আরিফা রহমান

২৮/এফ ট্রয়োনবী সার্কুলার রোড, ৫ম তলা, মতিঝিল, ঢাকা।
সর্বক্ষণিক যোগাযোগ: ০১৭১১-০২৪২৩৩
ই-মেইল ॥ sangbad24.net@gmail.com
© 2016 allrights reserved to Sangbad24.Net | Desing & Development BY Popular-IT.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com