ads

খাগড়াছড়িতে জড়ার্জীণ ভবনে চলছে বিচারিক কার্যক্রম

খাগড়াছড়ি

জসিম উদ্দিন জয়নাল
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি, সংবাদ২৪.নেট: পার্বত্য খাগড়াছড়ি জেলায় জড়ার্জীণ ভবনে চলছে বিচারিক কার্যক্রম। প্রধানমন্ত্রীর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের চারবছরেওখাগড়াছড়িতে সিজিএম কোর্ট ভবন নির্মিত হয়নি।গণপূর্ত বিভাগের পরিত্যাক্ত টিন সেড ভবনে ঝুঁকির মধ্যে দিয়েই চলছে বিচার কাজ। নেই পর্যাপ্ত ম্যাজিস্ট্রেট ও স্টাফ। ফলে দূভোর্গ পোহাতে হয় বিচারক ও বিচার প্রার্থীরা। বিচার কাজ বিলম্বিত হচ্ছে।

 

 

বিচার বিভাগ স্বাধীনত ও পৃথকীকরণের সুবাধে২০০৭ সালের ১ নভেম্বর থেকে খাগড়াছড়িতে চালু হয় জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কার্যক্রম।অবকাঠামো না থাকায় খাগড়াছড়ি জেলা আইনজীবী সমিতির দ্বিতীয় তলায় মাসিক ৬ হাজার টাকা ভাড়ায় সিজিএম কোর্টের কার্যক্রম শুরু করে।

 

 

পরবর্তীতে খাগড়াছড়ি গণপূর্ত বিভাগের পরিত্যাক্ত টিন সেড ভবনে স্থানান্তরিত হয় চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালত।

 
২০১৩ সালের ১১ নভেম্বর বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খাগড়াছড়ি চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালত ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। কিন্তু চার বছর পার হলেও এখনো ভবন নির্মাণ কাজ শুরু হয়নি।কবে নাগাদ শুরু হবে তাও নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউ।সিজিএম কোর্ট ভবন নির্মিত না হওয়ায় জড়াজীর্ণ ও অপর্যাপ্ত স্থানে কোন রকম বিচার কাজ চালানো হচ্ছে।

 

 

প্রতিদিন ব্যস্ততম সড়ক পার হয়ে ঝুঁকিপূর্ণভাবে আসামীদের আদালতে হাজির করা হয়ে থাকে।

 

 

খাগড়াছড়ি চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোকাম্মেল হোসেন জানান, কোর্টে সুষ্ঠু বিচার কাজ পরিচালনার জন্য ৯ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট থাকার কথা থাকলেও আছে মাত্র ৪ জন। ৭৯ জন স্টাফের বিপরীতে আছে ৪৫ জন।

 

 

তিনি আরো জানালেন, জড়াজীর্ণ ভবনে ভয় ও আতংকে কাজ করতে হয় বিচারক ও স্টাফদের।

 

 

খাগড়াছড়ি আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আবুল হোসেন জানান, সিজিএম কোর্টের নিমার্ন কাজ নিয়ে বিভিন্ন মহলের সাথে দেখা করেছি ও কথা বলেছি। কিন্তু কোন সুফল পাচ্ছি না।

 

 

খাগড়াছড়ি আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আব্দুল মালেক মিন্টু জানান, দীর্ঘ দাবী ও আন্দোলনের ফসল হিসাবে জেলা ও দায়রা জজ কোর্ট চালু হলেও খাগড়াছড়ি জেলায় বিচার ব্যবস্থা এখনো চলছে শত বছর আগে বৃটিশ প্রণীত হিলট্রেক্স ম্যানুয়েলে১৯০০ আইন অনুযায়ী। ফলে এ অঞ্চলের মানুষ সংবিধান অনুযায়ী আইনী সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

 

 

খাগড়াছড়িবাসী এ দ্বৈত বিচার ব্যবস্থা ও দুর্ভোগের অবসান চায়। তিনি বলেন, সিজিএম কোর্ট ভবন নিমার্ণ না হওয়ায় বিচারকদের নিরাপত্তার পাশাপাশি মর্যাদা হানি হচ্ছে।

 

 

খাগড়াছড়ি গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আমিনুর রহমান জানান, ভূমি সমস্যার কারণে খাগড়াছড়ি চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আদালত ভবনের নিমার্ণ কাজ দেরি হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে প্রকল্প পরিচালকের সাথে যোগাযোগ করা হবে বলেন ।

Facebook Comments

এ সংক্রান্ত আরো খবর




সম্পাদক: আরিফা রহমান

২৮/এফ ট্রয়োনবী সার্কুলার রোড, ৫ম তলা, মতিঝিল, ঢাকা।
সর্বক্ষণিক যোগাযোগ: ০১৭১১-০২৪২৩৩
ই-মেইল ॥ sangbad24.net@gmail.com
© 2016 allrights reserved to Sangbad24.Net | Desing & Development BY Popular-IT.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com